সাকিবের পারফর্মেন্স দেখে আফসোস করে যা বললেন প্রীতি জিনতা…

সাকিবের পারফর্মেন্স দেখে- সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন ক্রিস গেইল। দলটিকে আজ আর গেইল-ঝড়ের মুখোমুখি হতে হয়নি।

উল্টো কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে সাদামাটা স্কোরকে জয়ের জন্য যথেষ্ট করে তুলেছেন সানরাইজার্স বোলারেরা। এই জয়ে ৭ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুইয়ে উঠে এল সাকিব-রশিদদের দলটি।

আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৬ উইকেটে ১৩২ রান তুলেছিল সানরাইজার্স। তাড়া করতে নেমে ১২ ওভার শেষেও পাঞ্জাবের স্কোর ছিল ২ উইকেটে ৭৭ রান। অর্থাৎ শেষ ৪৮ বলে ৫৬ রান দরকার ছিল দলটির।

১৩তম ওভারের প্রথম বলেই মৈনাক আগাওয়ালকে (১২) ফিরিয়ে পাশার দান উল্টে দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন সাকিব। পরের ওভারে করুন নায়ারকেও তুলে নেন আফগান লেগ স্পিনার রশিদ (৪-০-১৯-৩)।

তখনই বোঝা গিয়েছিল, লো-স্কোরিং এই ম্যাচে নাটকীয় কিছুই ঘটতে যাচ্ছে। শেষ পর্যন্ত ঘটেছেও ঠিক তাই। সাদামাটা এই স্কোর তাড়া করতে নেমে পাঞ্জাব (১১৯) হেরেছে ১৩ রানে।

১৫তম ওভারে বিপজ্জনক অ্যারন ফিঞ্চকে (৮) দ্রুত ফিরিয়ে জয়ের পাল্লা সানরাইজার্সের দিকে ভারী করে তুলেছিলেন সাকিব। বাংলাদেশের এই তারকা অলরাউন্ডার আজ দারুণ বোলিং করেছেন।

গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দলকে এনে দিয়েছেন উইকেট। মৈনাককে ফিরিয়ে আইপিএলে নিজের ৫০তম ম্যাচে উইকেটের ‘ফিফটি’-ও তুলে নেন সাকিব। এই ম্যাচে তাঁর বোলিং ফিগার ৩-০-১৮-২।

জয়ের জন্য শেষ ৫ ওভারে ৪২ রান দরকার ছিল পাঞ্জাবের। হাতে ছিল ৫ উইকেট। এই অবস্থায় ১৬তম ওভারে পাঞ্জাবের মনোজ তিওয়ারি ও অ্যান্ড্রু টাইকে ফেরান সানরাইজার্স পেসার সন্দ্বীপ শর্মা (৪-০-১৭-২)।

পাঞ্জাবের স্কোর তখন ৭ উইকেটে ৯৬। অর্থাৎ, দলীয় ৫৫ রানে লোকেশ রাহুল আউট হওয়ার পর ৪১ রান তুলতেই পাঞ্জাবের ৭ উইকেট নেই!

Hits: 12

Facebook Comments

error: Content is protected !!