এই ভিডিও দেখার আগে প্রেমিকাকে পাশে রাখবেন না, নাহলে স্থির থাকতে পারবেন না! (ভিডিওসহ)

এই ভিডিও দেখার আগে প্রেমিকাকে পাশে রাখবেন না, নাহলে স্থির থাকতে পারবেন না! (ভিডিওসহ)

বি: দ্র : ই্উটিউব থেকে প্রকাশিত সকল ভিডিওর দায় সম্পুর্ন ই্উটিউব চ্যানেল এর।

এর সাথে আমরা কোন ভাবে সংশ্লিষ্ট নয় এবং আমাদের পেইজ কোন প্রকার দায় নিবেনা।ভিডিওটির উপর কারও আপত্তি থাকলে তা অপসারন করা হবে।প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা রকম ঘটনা আপনাদের মাঝে তুলে ধরা এবং সামাজিক সচেতনতা আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য।

ভিডিওটি পোষ্টের নিচে দেয়া আছে। ভিডিওটি দেখতে স্ক্রল করে পোষ্টের নিচে চলে যান।

আরো পড়ুনঃ

চাচীর গর্ভে ভাতিজার অবৈধ সন্তান! অতঃপর…

সম্পর্কে তারা চাচী ও ভাতিজা। তাদের বয়সের

পার্থক্য খুব একটা বেশি না। একপর্যায়ে তারা অসম ও অবৈধ পরকীয়ার সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। তাদের এই অসম ও অবৈধ প্রণয়লীলা একপর্যায়ে ফাঁস হয়ে যায়। আর এরপরই একসাথে আত্মহত্যা করেছেন তারা।

এ ঘটনা ঘটেছে বগুড়ার শিবগঞ্জে পরকীয়া। পরকীয়ার খবর ফাঁস হওয়ায় কীটপতঙ্গ মারার ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যা করেছে চাচি-ভাতিজা।

আজ সোমবার (২০ মে) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার গাংনগর মাঝপাড়া এলাকায় বাড়ির পাশের আখ খেত থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।নিহতরা হলেন- শিবগঞ্জ উপজেলার গাংনগর মাঝপাড়ার সুবন্ধু দাসের স্ত্রী চৈতী রানী দাস (২৭) ও অমল চন্দ্র দাসের ছেলে কনক চন্দ্র দাস (২২)।

স্থানীয়রা জানান, দুই সন্তানের জননী চৈতী রানী মাঝপাড়া গ্রামের বুদ্ধি প্রতিবন্ধী সুবন্ধু রায়ের স্ত্রী। একই মহল্লার বাসিন্দা অমল চন্দ্র রায়ের পুত্র কনক চন্দ্র রায় এর সাথে আত্মীয়তা সূত্রে চৈতী রানী অবৈধ প্রনয়লীলায় জড়িয়ে পড়ে। সুবন্ধু রায় কনকের বাবার আপন ছোট ভাই। চৈতী রানী ও কনক দাসের মধ্যে বেশ কিছুদিন যাবৎ এ সম্পর্ক চলে আসছিল। তারা সম্পর্কে চাচী এবং ভাতিজা হওয়ায় শুরুর দিকে তাদের মেলামেশা প্রতিবেশীরা কেউ সন্দেহের চোখে দেখেনি। কয়েক দিন আগে দুজনের অবৈধ সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হয়। আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ে তারা।

এরপর চৈতী রানীর গর্ভে জন্ম নেয়া দুই সন্তানও ভাতিজা কনকের বলে স্বীকার করে চৈতী। এ নিয়ে উভয়ের পরিবার থেকে তাদের শাসন করা হয়। সম্প্রতি পাড়া প্রতিবেশী ও আত্মীয়-স্বজনরা তাদের বিভিন্ন ভাবে অপমান অপদস্ত করতে থাকে। এরই জের ধরে দু’জনে একসাথে আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্ত নেয়। রোববার রাতে চৈতী রানী এবং কনক ঘর থেকে বের হয়ে যায়।

পরে রবিবার দিবাগত রাত দেড়টায় তারা দু’জনে একসাথে বাড়ির পার্শ্ববর্তী পাটক্ষেতে ইঁদুর নিধন ও পুকুরে ব্যবহারযোগ্য গ্যাস ট্যাবলেট সেবন করে। মুহুর্তেই গ্যাস ট্যাবলেটের প্রতিক্রিয়া শুরু হলে চৈতী ও কনক ছটফট করতে থাকে। ঘটনা বুঝতে পেরে পাড়া প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নেয়ার প্রস্তুতির মধ্যেই মারা যায় তারা।

এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, সোমবার নিহত দুইজনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বিডি২৪লাইভ

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *